কাপ্তাই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চালু হয়েছে কমিউনিটি আই ভিশন সেন্টার।


জয় বাংলা নিউজ প্রকাশের সময় : ১৮/০৯/২০২২, ৩:২১ PM / ১৪১
কাপ্তাই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চালু হয়েছে কমিউনিটি আই ভিশন সেন্টার।

ঝুলন দত্ত, কাপ্তাই ( রাঙামাটি) প্রতিনিধিঃ

রাঙামাটির কাপ্তাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চলতি মাস হতে আধুনিক চক্ষু চিকিৎসা প্রদানের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে চালু হয়েছে কমিউনিটি আই ভিশন সেন্টার।

জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট, ঢাকা এর প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে সমগ্র রাঙ্গামাটি জেলার মধ্যে কাপ্তাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ কার্যক্রম শুরু হয়েছে বলে জানান কাপ্তাই স্বাস্থ্য বিভাগের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মাসুদ আহমেদ চৌধুরী।

এই স্বাস্থ্য কর্মকর্তা আরোও জানান, হাসপাতালের বর্হিবিভাগে চালুকৃত এ সেন্টারে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত দক্ষ জনবলের দ্বারা প্রত্যন্ত অঞ্চলে চক্ষু চিকিৎসার নতুন দ্বার উন্মোচিত হলো। রোগীরা হাসপাতালের বর্হিবিভাগের টিকেট কেটে মাত্র ৩ টাকায় চক্ষু সেবা গ্রহণ করতে পারছেন। এই সেন্টারে অত্যাধুনিক মেশিনের সাহায্যে চোখের রোগ নির্ণয়, চোখের চশমার পাওয়ার নির্ধারণসহ যাবতীয় সু্যোগ সুবিধা চালু রয়েছে। এইছাড়া অত্যন্ত জটিল রোগীরা এই হাসপাতাল হতে অনলাইনের মাধ্যমে জাতীয় চক্ষু ইনস্টিটিউট এর বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক এর সাথে যোগাযোগ করে চিকিৎসা সেবা নিতে পারছেন।

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ মোঃ ওমর ফারুক রনি বলেন, ‘পার্বত্য অঞ্চলে জনগনের স্বাস্থ্য সেবাকে আরও বেগবান করার লক্ষ্যে স্বাস্থ্য বিভাগ কাজ করে যাচ্ছে। তারই ধারাবাহিকতায় এই কমিউনিটি আই ভিশন সেন্টার চালুর মাধ্যমে সাধারণ জনগণ অত্যন্ত স্বল্পখরচে চক্ষু চিকিৎসা গ্রহণ করতে পারবেন। ফলে কাপ্তাই সহ আশেপাশের এলাকার মানুষের জন্য এ অঞ্চলে অত্যন্ত অপ্রতুল চক্ষু চিকিৎসা সেবা প্রাপ্তির নতুন ঠিকানা হবে কাপ্তাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। ‘

এদিকে রবিবার সকালে কাপ্তাই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে কথা হয়, কাপ্তাইয়ের মোঃ শাহেদ এর সাথে। তিনি চোখের প্রদাহ নিয়ে হাসপাতালে সেবা গ্রহণ করতে এসেছেন। তিনি বলেন, ‘এই হাসপাতালে চোখের চিকিৎসা সেবা চালু হওয়ায় তিনি চিকিৎসা ও একইসাথে বিনামূল্যে হাসপাতাল থেকে সরবরাহকৃত ওষুধ পেয়েছেন।
হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা নিতে আসা রোগী আমেনা বেগম, চোখে সঠিকভাবে দেখতে অসুবিধা নিয়ে চিকিৎসার জন্য আসেন। তাকে উক্ত সেন্টারে চোখের পরীক্ষা করে চশমার পাওয়ার ঠিক করে দেয়া হলে তিনি আনন্দ প্রকাশ করেন এবং স্বাস্থ্য বিভাগের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।

 

 

কাপ্তাইয়ে দশ’ টি সরকারি দপ্তরের প্রধান দশ জন নারী কর্মকর্তা।