ঘুমধুমে এক সপ্তাহ বন্ধ থাকার পর ভেসে আসছে মর্টারশেল বিস্ফোরণ শব্দ।


জয় বাংলা নিউজ প্রকাশের সময় : ০৩/১০/২০২২, ৯:৪৮ PM / ১১
ঘুমধুমে এক সপ্তাহ বন্ধ থাকার পর ভেসে আসছে মর্টারশেল বিস্ফোরণ শব্দ।

আবদুর রশিদ নাইক্ষ্যংছড়ি।

বান্দারবানের নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুমে ৩ অক্টোবর সোমবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে তুমব্রু সীমান্তের ৩৪,৩৫,৩৯,৪০,ও ৪১ নং পিলার আমতলী ও তুমব্রু এলাকা থেকে মিয়ানমারের ভূখণ্ডে ভারী অস্ত্রের গোলাগুলি শোনা যায়।

সেখানে মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী পুলিশের (বিজিপি) তুমব্রু রাইট ক্যাম্প অবস্থিত। মূলত বিজিপির ওই ক্যাম্পের আশেপাশে গোলাগুলি চলছে। মুরিঙ্গাঝিরি বিজিপি সীমান্ত চৌকি থেকে থেমে থেমে গোলাগুলি ও মর্টারশেল বিস্ফোরণের আওয়াজ ভেসে আসছে এমনটি জানিয়েছেন বাংলাদেশ সীমান্তের তুমব্রু, বাইশপাড়ী ও আমতলী এলাকার বাসিন্দারা।

স্থানীয় ইউপি সদস্য দিল মোহাম্মদ ভুট্টো বলেন তুমব্রু সীমান্তের ওপার বিজিপি ক্যাম্প থেকে ভেসে আসছে পর পর ৩টি মর্টারশেল বিস্ফোরণের আওয়াজ,যা নতুন করে প্রভাব বিস্তার করছে সীমান্ত লাগোয়া স্থানীয়দের মাঝে।

এদিকে স্হানীয় ইউপি চেয়ারম্যান এ কে এম জাহাঙ্গীর আজিজ’র কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ইউনিয়ন থেকে একটু দুরে আছি তবে রাতের মধ্যে চলে আসব এবঙ ওপার থেকে মর্টার শেল বিস্ফোরণের আওয়াজ আসছে বলে বেশ কয়েক জন জানিয়েছেন। তিনি আরো বলেন, ইউপি সদস্যদের মাধ্যমে স্হানীয়দের সতর্কতার সাথে চলাফেরাসহ সীমান্তের কাছে না যাওয়ার জন্য নিষেধ করেছেন বলেও জানিয়েছেন তিনি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক বিজিবি কর্মকর্তা জানান
সব সীমান্তেই আমরা সতর্ক থাকি তবে মিয়ানমার সীমান্তে বেশি সতর্ক থাকি। কারণ আমরা একটা বিষয়ে খুব সোচ্চার এ ঘটনার জের ধরে নতুন করে যেন কেউ বাংলাদেশে প্রবেশ করতে না পারে। গোলা ছোড়ায় সীমান্তবর্তী জনগোষ্ঠীর ঝুকি নিয়ে তিনি বলেন, সাবধানে না চললে ঝুকি থেকেই যায়।

 

 

 

পার্বত্য চট্রগ্রামের সকল সম্প্রদায়ের অনুষ্ঠানে নাশকতা ঠেকাতে সচেতন হতে হবে – দীপংকর তালুকদার এমপি।