বান্দরবানে বিশুদ্ধানন্দ মহাথেরোর হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় মানব বন্ধন


জয় বাংলা নিউজ প্রকাশের সময় : ০৬/০২/২০২২, ১০:৫১ PM / ১৫
বান্দরবানে বিশুদ্ধানন্দ মহাথেরোর হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় মানব বন্ধন

মোঃ শহীদুল ইসলাম রানা, বান্দরবান সংবাদদাতা:
গত ৩০ জানুয়ারি দুর্বৃত্তদের হাতে খাগড়াছড়ির ভান্তে ভদন্ত বিশুদ্ধানন্দ মহাথেরো হত্যা ও জ্ঞান জ্যোতি ভিক্ষুকে কুপিয়ে জখম করার প্রতিবাদে  ৬ই ফেব্রুয়ারি রবিবার সকালে বান্দরবান মুক্তমঞ্চে এক বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়। স্থানীয় বৌদ্ধ বিহারসমূহের পরিচালনা কমিটি এবং বৌদ্ধ ভিক্ষুদের সংগঠন ও বাংলাদেশ মার্মা স্টুডেন্টস  কাউন্সিল সংগঠনের উদ্যোগে রাজগুরু বৌদ্ধ বিহার থেকে সকাল ১১টায়  মৌন মিছিল  শুরু হয়ে জেলার গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে  মুক্ত মঞ্চের সামনে  মানব বন্ধন অনুষ্টিত হয়।

মৌনমিছিল ও মানব বন্ধনে শত শত বৌদ্ধ ভিক্ষু ও শত শত বৌদ্ধ নর নারী অংশগ্রহণ করেন।   পার্বত্য ভিক্ষু পরিষদের সভাপতি ভদন্ত পঞ্ঞা  নন্দ মহাথের ভান্তের সভাপতিত্বে মানব বন্ধন সমাবেশে বক্তব্য রাখেন ভদন্ত তেজপ্রিয় মহাথের  ভিক্ষু।অংশৈ মং মার্মা,ভদন্ত কল্যাণ মিত্তা ভিক্ষু, ভদন্ত গুনবর্ধন মহাথের, ভদন্ত নন্দ মালা মহাথের  মানব বন্ধনে সংহতি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন বান্দরবান জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সম্পাদক ও জেলা পরিষদের সদস্য লক্ষী পদ দাশ, আরো বক্তব্য রেখেছেন বিশিষ্ট মানবাধিকার  কর্মী অং চ মং মার্মা প্রমূখ।

বক্তারা  বলেন সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশে  সংখ্যালুগু সম্প্রদায় ও ধর্মীয়গুরুদের উপর হামলা হয়েছে কিন্তু একটির ও সুষ্ঠু বিচার না হওয়ার কারনে বারবার হত্যাকান্ড ও হামলার ঘটনা ঘটে অথচ “দেশের প্রতিটি লড়াই-সংগ্রামে এদেশের বৌদ্ধরা অন্যদের সাথে সংগ্রামে অংশগ্রহণ করেছে।

প্রধানমন্ত্রী,  এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীসহ উর্দ্ধতন প্রশাসনকে উদ্দেশ্য করে বক্তাগণ বলেন, সংখ্যালুগু ধর্মীয় গুরু ও ধর্মীয় প্রতিষ্টানের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার আহবান জানিয়ে বক্তারা ‘আরো  বলেন যারা অন্যায়কারী তাদেরকে দ্রুত বিচারের আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হোক এবং নিরীহ বৌদ্ধদের যাতে হয়রানি করা না হয় এজন্য সংশ্লিষ্টদের আন্তরিক দৃষ্টিও কামনা করেন বক্তাগণ।

গুনবর্ধন মহাথেরো বলেন, “বিশুদ্ধানন্দ মহাথেরোর হত্যাকাণ্ড  একটি জঘন্য অপরাধ। তিনি বলেন বৌদ্ধ ভিক্ষুগণ সকল প্রানীর হিতসুখ মঙ্গল কামনা করেন তারপরও বৌদ্ধ ভিক্ষুদের নিরাপত্তা নেই তাই অপরাধী যেই হোক না কেন আমরা সেই অপরাধীর বিচার চাই। অনতিবিলম্বে এই ঘটনার সুরাহা চাই।”
সমাবেশে থেকে হত্যার সাথে জড়িত প্রকৃত আসামিদের গ্রেপ্তার করে তাদের অনতিবিলম্বে শাস্তি নিশ্চিতের দাবি জানানো হয়।

উল্লেখ্য যে, গত ৩০ জানুয়ারি দিবাগত রাতে পার্বত্য চট্টগ্রামের খাগড়াছড়ি সদর উপজেলার ধর্মসুখ বৌদ্ধ বিহারের ভদন্ত বিশুদ্ধানন্দ মহাথেরোকে দুর্বৃত্তদের একটি দল হত্যা করে। পরবর্তীতে বিহারে লুটপাট চালায়। তিনি ধর্মসুখ বিহারের অধ্যক্ষ হিসেবে নিযুক্ত ছিলেন। তার পরদিন চট্টগ্রামস্থ জুম্ম চাদিগাং বৌদ্ধ বিহারের অধ্যক্ষ জ্ঞান জ্যোতি ভিক্ষুকে কুপিয়ে জখম করার ঘটনা ঘটে। তিনি বর্তমানে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি আছেন।
মানব বন্ধন ও সমাবেশ শেষে জেলাপ্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করে বৌদ্ধ ভিক্ষুদের সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।