বান্দরবানে ভুয়া সনদ সত্যায়নে রোহিঙ্গাদের জাতীয় পরিচয় পত্র সৃজনের অভিযোগ উঠেছে চেয়ারম্যান ও মেম্বারের বিরুদ্ধে


জয় বাংলা নিউজ প্রকাশের সময় : ২২/০৪/২০২২, ৭:৫২ PM / ১৭
বান্দরবানে ভুয়া সনদ সত্যায়নে রোহিঙ্গাদের জাতীয় পরিচয় পত্র সৃজনের অভিযোগ উঠেছে চেয়ারম্যান ও মেম্বারের বিরুদ্ধে

মোঃ শহীদুল ইসলাম রানা, ( বান্দরবান সংবাদদাতা):

“রোহিঙ্গা” বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী দেশ মায়ানমার থেকে বিতাড়িত জনসাধারণ যাদের বাংলাদেশ সরকার শরনার্থী হিসেবে কক্সবাজার জেলায় শরনার্থী ক্যাম্প বানিয়ে আশ্রয় দিয়েছে।

দীর্ঘদিন শরনার্থী হিসেবে থাকার কারনে তাদের সাথে স্থানীয় জনসাধারণের সখ্যতা গড়ে উঠায় স্থানীয় ব্যাবসা বানিজ্য ও শ্রমিক হিসেবে
পার্শ্ববর্তী জেলা বান্দরবানের সদর উপজেলা সহ বিভিন্ন উপজেলায় কাজে আসছে কন্টাকটার বা মাঝির মাধ্যমে।

কাজের সুবাদে স্থানীয় ভাবে বসবাস ও আধিপত্য ও জনবল বৃদ্ধির অভিযোগ পাওয়া যায় বিভিন্ন সময়।

এরই ধারাবাহিকতা বান্দরবানের সদর উপজেলার সুয়ালক ইউনিয়নের জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন কার্যালয়ের কর্মকর্তা সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নে চেয়ারম্যান ও মেম্বার বিরুদ্ধে সত্য গোপন করে জীবিত ব্যাক্তিকে মৃত নামে  ভুয়া ঠিকানায় জ্বাল জন্ম ও মৃত্যু সনদের সত্যায়নের মাধ্যমে উপজেলা নির্বাচন কার্যক্রম /২০২২ খ্রীঃ এর ছবিসহ ভোটার তালিকা হালনাগাদের যাচাই বাছাইয়ের পর প্রদত্ত তালিকায় তাদের নাম অন্তর্ভুক্ত করে অবৈধ ভাবে ২ জন রোহিঙ্গা শরনার্থীকে বাংলাদেশের নাগরিকত্ব সনদ (NID) পাইয়ে দেয়ার পায়তারা করছে বলে অভিযোগ উঠেছে

এর প্রেক্ষিতে  বান্দরবান চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত আমলী- ১ এ ৪ জন সহ অজ্ঞাত নামা আরো ৫/৬ জনের বিরুদ্ধে ২১শে এপ্রিল বৃহস্পতিবার জেলা চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত আমলী-১ এ এসে জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন আইন,২০০৪ এর ২১ ধারা অনুযায়ী মামলা দায়ের করেছেন যাহার আদালতের মামলা নাম্বার ৫৬/২০২২।

সুয়ালক ইউনিয়ন পরিষদের ২নং ওয়ার্ডের কাইচতলী এলকায় বসবাসকারী স্থানীয় বাসিন্দা মোঃ হাসান নামের একজন সচেতন কলেজ পড়ুয়া ছাত্র এবং মামলায় স্বাক্ষী হিসেবে একই এলাকায় বসবাসকারী স্থানীয়  কয়েকজন বাসিন্দার নাম মামলার এজহারে উল্লেখ আছে।

মামলার এজাহার সুত্রে জানাযায় বিগত   ২৭ ২৮ শে সেপ্টেম্বর ২০১৬ তারিখে জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন কার্যালয় ৪ নং সুয়ালক  ইউনিয়ন পরিষদ,বান্দরবান সদর উপজেলা এর কার্যালয় এবং চেয়ারম্যান এর কার্যালয় থেকে,চেয়ারম্যান,সংশ্লিস্ট ওয়ার্ড মেম্বারদের যোগসাজশে বাংলাদেশের পার্শ্ববর্তী দেশ মায়ানমার থেকে শরনার্থী হিসেবে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া জনসাধারণকে নকল জন্ম ও মৃত্যু সনদপত্রে চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের সত্যায়নের মাধ্যমে বাংলাদেশের নাগরিকত্ব সনদ (NID) পাইয়ে দেয়ার ব্যাবস্থা করে আসছে।আদালতে দায়ের করা মামলায়  এও বলা হয়েছে এলাকায় নিজেদের রাজনৈতিক শক্তি বৃদ্ধি সহ বহিরাগত শরনার্থী রোহিঙ্গাদের মাধ্যমে বিভিন্ন সময় এলাকায় অস্থিরতা তৈরি করার কাজ করে যাচ্ছে এবং তাদের মাধ্যমে অন্যান্ন রোহিঙ্গারাও এলাকায় বসবাস করা শুরু করেছে।

মামলার এজাহারে যাদের বিরুদ্ধে সম্পৃক্ততার অভিযোগ উঠেছে তারা হলেন শফিউল মোস্তফা(২০) রোহিঙ্গা,আলী জোহার(২২)রোহিঙ্গা,মোঃ জসিম উদ্দিন,সুয়ালক ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ড মেম্বার এবং সুয়ালক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান উক্যনু মার্মা।

অভিযোগপত্রে বলা হয়েছে এ বিষয়ে বিগত সময়েও সুয়ালক ইউনিয়নের সচেতন নাগরিক সমাজের পক্ষ হতে বান্দরবান জেলা প্রশাসক,জেলা পুলিশ সুপার,জেলা দুর্নীতি দমন কমিশন বরাবরে অভিযোগ প্রদানের কথা বলা হয়েছে কিন্তু সরকারি সংশ্লিষ্ট বিভাগের কেউ এখনো পর্যন্ত কার্যকর কোন ব্যাবস্থা গ্রহন না করায় ২১শে এপ্রিল ২০২২ তারিখে ৪নং সুয়ালক ইউনিয়নে কাইচতলী এলাকায় বসবাসকারী স্থানীয় বাসিন্দা মোঃ হাসান বাদী হয়ে এবং একই ইউনিয়নের মোঃ ইমরান,শামসুল ইসলাম,মোঃ সিরাজুল ইসলাম সহ আরো অনেকেই আদালতে করা মামলায় স্বাক্ষী হিসেবে রয়েছে বলে আদালতে করা মামলার কপিতে উল্লেখ আছে।

আদালতে করা মামলার বিষয়ে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী এডভোকেট কৌশিক দত্ত বলেন সদর উপজেলার ৪নং সুয়ালক ইউনিয়নে শরনার্থী রোহিঙ্গাদের অবৈধ ভাবে জাতীয় পরিচয় পত্র ও ভোটার নিবন্ধনের বিষয়ে এলাকার সচেতন নাগরিক সমাজের পক্ষ হতে চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত-আমলী ১ এ সি.আর মামলা নং ৫৬/২০২২ এর সুত্রে ফৌজদারী অভিযোগ এর ভিত্তিতে মামলা করা হয়েছে  বাদীদের করা মামলায়  আদালত জেলা গোয়েন্দা সংস্থার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কে  অভিযোগের পাঁচটি পয়েন্ট উল্লেখ করে   আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলেছে।

দীর্ঘদিন রোহিঙ্গারা বসবাসের কারনে এ অঞ্চলে তাদের বিভিন্ন কার্যক্রমের প্রভাব পড়ছে স্থানীয় রাজনীতিতে,তাছাড়া নাগরিকত্ব না থাকার কারনে তারা যে কোন অসামাজিক অপরাধ মুলুক কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়লেও তাদের সনাক্ত করাটাও কঠিন হবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ক্ষেত্রে,তাই সমস্যা সমাধানে কার্যকর ব্যাবস্থা গ্রহনের দিকে নজর দিতে হবে সংশ্লিষ্ট মহলকে।