সাংগ্রাইং রি লং পোয়ে উৎসবে মেতেছে মারমা সম্প্রদায়ের তরুন-তরুনী


জয় বাংলা নিউজ প্রকাশের সময় : ১৫/০৪/২০২৩, ৮:২৭ PM / ১৬৫
সাংগ্রাইং রি লং পোয়ে উৎসবে মেতেছে মারমা সম্প্রদায়ের তরুন-তরুনী

জয়বাংলা নিউজ ডেস্ক।

পাহাড়ের মারমা সম্প্রদায়ের প্রধান সামাজিক উৎসব মাহাঃ সাইংগ্রাইং পোয়েঃ উৎসবের প্রধান আকর্ষণ রিলং পোয়ে বা মৈত্রী পানি বর্ষণ খেলা।

১৫ই এপ্রিল (শনিবার) বিকেলে জেলার রাজার মাঠে বান্দরবান ক্ষুদ্র নৃ গোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউট,বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ ও মাহাঃ সাংগ্রাইং পোয়েঃ উৎসব উদযাপন কমিটির উদ্যােগে মারমাদের ১৩৮৪ সাক্রই বিদায় ও ১৩৮৫ সাক্রই বর্ষবরন উৎসব উপলক্ষে হাজারো মানুষের অংশ গ্রহণে রিলং পোয়ে (মৈত্রী পানি বর্ষণ খেলা ) অনুষ্ঠান অনুষ্টিত ।

এসময় উৎসব উদযাপন পরিষদের সভাপতি হ্লা এ মং মারমা”র সভাপতিত্ব প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ক্য শৈ হ্লা বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন , পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রীর সহ ধর্মীনি মিসেস মেহ্লা প্রু মারমা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হোসাইন মোহাম্মদ রায়হান কাজেমী, সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম শহিদুল ইসলাম, প্রেসক্লাবের সাধার সম্পাদক মিনারুল হক প্রমূখ।

প্রধান অতিথি বলেন বছরে একবার সাংগ্রাইং রিলংপোয়ে উৎসব পালন করা হয়। বান্দরবানে এই রিলংপোয়ে ১৯৭৫ সালে প্রথম শুরু হয়েছিল, তখন থেকেই প্রতিবছর মারমা বর্ষপঞ্জী অনুসারে পুরনো বছরকে বিদায় ও নতুন বছরকে বরন উপলক্ষে এই মৈত্রী পানি বর্ষণ খেলা প্রতি বছর অত্যন্ত জাঁকজমক পূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হয়।

এই সাংস্কৃতিক উৎসবে সন্ত্রাসীদের হুমকী ধূমকি, হামলা কোনমতেই কাম্য হতে পারেনা।তাই তিনি সকল জাতি বর্ণধর্ম নির্বিশেষে সকলকে সচেতন ও ঐক্যবদ্ধভাবে সন্ত্রাসাীদের কার্যক্রম প্রতিরোধ করার আহ্বান জানান। তিনি আরো বলেন সন্ত্রাসী কর্মাকান্ডে যারা জড়িত হবে আইনশৃংখলা বাহিনী যেনো তাদের বিরুদ্ধে দ্রুত আইনী পদক্ষেপ গ্রহণ করে।
অনুষ্টান শুরুর আগে বান্দরবান পৌর মেয়র মো. ইসলাম বেবী “র মৃত্যুতে অনুষ্ঠানস্থলে সবাই দাড়িয়ে একমিনিট নিরবতা পালন করেন।

উল্লেখ্য যে মারমাদের উৎসবের মূল আনুষ্ঠানিকতা ১৩ই এপ্রিল থেকে মাহাঃ সাংগ্রাইং পোয়ে উৎসব শুরু হয়েছে। ১৪এপ্রিল ছিল বৌদ্ধ মূর্তি স্নান, ১৫এপ্রিল থেকে মারমা সম্প্রদায় অধ্যূষিত গ্রাম গুলোতে সপ্তাহ ব্যাপী উৎসবমূখর পরিবেশে সাংগ্রাইং রিলং পোয়ে ( মৈত্রী পানি বর্ষন ) অনুষ্টিত হবে। যেখানা অংশগ্রহণ করেন শিশু থেকে বৃদ্ধরা।

 

আরো পড়ুন –

 

না ফেরার দেশে বান্দরবান পৌরসভার মেয়র মোহাম্মদ ইসলাম বেবী