সেনা সদস্য  হত্যার প্রতিবাদে পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের বিক্ষোভ


জয় বাংলা নিউজ প্রকাশের সময় : ০৫/০২/২০২২, ৯:২০ PM / ১৭
সেনা সদস্য  হত্যার প্রতিবাদে পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের বিক্ষোভ

মোঃ শহীদুল ইসলাম রানা, বান্দরবান সংবাদদাতা:
বান্দরবান জেলার রুমা উপজেলায় দুর্গম পাহাড়ি অঞ্চলে সেনাবাহিনীর সাথে জেএসএস সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের গোলাগুলিতে সেনা সদস্য ওয়ারেন্ট অফিসার মোঃ হাবিবুর রহমানকে হত্যার প্রতিবাদে প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক  পরিষদ।

৫ই ফেব্রুয়ারী দুপুর ৩ টায় পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের উদ্যোগে জেলা কেন্দ্রীয় কার্যালয় হতে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে জেলা সদরের গুরুত্বপূর্ণ এলাকা প্রদক্ষিণের পর জেলা প্রেস ক্লাবের সামনে এসে শেষ হয়।

বিক্ষোভ সমাবেশ শেষে জেলা প্রেস ক্লাবের সামনে আবুল কালাম, সহ সভাপতি, পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ  এর সভাপতিত্বে   আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়,এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কাজী মো: মজিবর রহমান
চেয়ারম্যান, পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ, কেন্দ্রীয় কমিটি।বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নাছির উদ্দীন, সেক্রেটারী,
পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ, বান্দরবান,
রুহুল আমিন, সহ সভাপতি, পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ, বান্দরবান, আসিফ ইকবাল, সদস্য সচিব, পার্বত্য চট্টগ্রাম ছাত্র পরিষদ, বান্দরবান পার্বত্য জেলা।

প্রধান অতিথি কাজী মো: মজিবর রহমান চেয়ারম্যান, পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ, কেন্দ্রীয় কমিটি বলেন ১৯৯৭ সালের পার্বত্য শান্তি চুক্তির মাধ্যমে পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তি প্রতিষ্ঠা পায় নি, পার্বত্য শান্তি চুক্তির বাস্তবায়ন তারা কখনোই চায় নি তারা পাহাড়ে জুমল্যান্ড প্রতিষ্ঠায় কাজ করে যাচ্ছে আর তাই ২ ই ফেব্রুয়ারি রাতে সেনাবাহিনীর রুমা জোনের একটি টহল দলের উপর  সন্তু লারমা সমর্থিত জেএসএস মূল দলের সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের গুলি বিনিময়ের ঘটনায় সেনাবাহিনীর একজন সিনিয়র ওয়ারেন্ট অফিসার মোঃ হাবিবুর রহমান শাহাদাৎ বরন করেন।

এখানে উল্লেখ্য যে পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তির অনুচ্ছেদ ঘ এর ধারা অনুযায়ী সকল অস্ত্র ও গোলাবারুদ জমা দেওয়ার মাধ্যমে তৎকালীন শান্তিবাহিনী সকল  সদস্যের  আত্মসমর্পণের  শর্ত  থাকলেও  সন্তু লারমার নেতৃত্বাধীন জেএসএস তা ভঙ্গ করে চুক্তি সম্পাদনের পরবর্তী সময় হতেই সশস্ত্র সন্ত্রাসী লালন করে আসছে।

যদিও প্রায়শই সন্তু লারমা ও তার দল সরকারের বিরুদ্ধে শান্তি চুক্তির শর্ত ভঙ্গ ও বাস্তবায়ন না করার অভিযোগ করে থাকে। বর্তমানে পার্বত্য চট্টগ্রামে তৎপর চারটি আঞ্চলিক দল হত্যা, গুম ,চাঁদাবাজি ইত্যাদি দুষ্কৃতিমূলক কর্মকান্ড পরিচালনার মাধ্যমে পাহাড়ের নিরীহ সাধারণ মানুষের জনজীবনকে  অতিষ্ঠ করে তুলেছে। পাশাপাশি সশস্ত্র আন্দোলনের মাধ্যমে পার্বত্য চট্টগ্রামকে বাংলাদেশ হতে বিচ্ছিন্ন করে স্বাধীন জুম্মল্যান্ড সৃষ্টি পায়তারা করছে যা নিঃসন্দেহে দেশদ্রোহিতার শামিল  ।