পর্যটন স্পটের সৌন্দর্য রক্ষায় নিজেদের সচেতন হতে হবে প্রকৃতি প্রেমী পর্যটকদের


জয় বাংলা নিউজ প্রকাশের সময় : ২১/১২/২০২১, ৫:০৭ PM / ১৪৩
পর্যটন স্পটের সৌন্দর্য রক্ষায় নিজেদের সচেতন হতে হবে প্রকৃতি প্রেমী পর্যটকদের

মোঃ শহীদুল ইসলাম রানা, বান্দরবান সংবাদ দাতা:
বান্দরবন বাংলাদেশের নৈসর্গিক সৌন্দর্য্যের লীলা ভূমি। এর অপার সৌন্দয্যে মুগ্ধ হয় না এমন মানুষ খুব কমই আছে।পাহাড় আর সবুজের সমারোহে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য মন্ডিত পাহাড় কন্যা খ্যাত পার্বত্য বান্দরবান। প্রতি বছর বিশেষত শীতের মৌসুমে এই পর্যটন নগরীতে প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন প্রান্তের হাজারো পহাড় আর প্রকৃতি প্রেমী পর্যটকের পদচারণায় মুখরিত থাকে জেলার নাম করা পর্যটন কেন্দ্র গুলো।

প্রকৃতি প্রেমী এ সকল পর্যটকদের বিনোদনের কথা মাথায় রেখে জেলা প্রশাসনের তত্বাবধানে এই মৌসুমে পর্যটন কেন্দ্র গুলো সাজানো হয় নতুন ভাবে।স্বাভাবিক দিন গুলোর চাইতে বিশেষ করে সরকারি বন্ধের দিন গুলোতে পর্যটন কেন্দ্র গুলোতে থাকে উপছে পড়া ভিড়।

বান্দরবান জেলার দর্শনীয় স্থান গুলোর মধ্যে বাকলাই ঝরণা, বগা লেক, বুদ্ধ ধাতু জাদি, চিম্বুক পাহাড় রেঞ্জ, চিনরি ঝিরি ঝরণা, ফাইপি ঝর্ণা, জাদিপাই ঝর্ণা, কেওকারাডং, মেঘলা পর্যটন কমপেস্নক্স, মিরিংজা পর্যটন, নাফাখুম, রেমাক্রি, নীলাচল, নীলগিরি, থানচি, পতংঝিরি ঝরণা, প্রান্তিক লেক, রাজবিহার, উজানিপারা বিহার, রিজুক ঝরণা, সাংগু নদী, শৈল প্রপাত, তাজিডং, উপবন পর্যটন সহ আরো নতুন নতুন অনেক পর্যটন স্পট গড়ে উঠেছে পর্বত প্রেমীদের জন্য।

প্রতিদিন বাংলাদেশের বিভিন জেলা হতে হাজারো পর্যটক এ সকল পর্যটন স্পট গুলোতে ভ্রমনের মাধ্যমে তাদের মনের আনন্দের খোরাক জোগায়।কিন্তু বিস্তীর্ণ বিশাল উন্মুক্ত অনেক পর্যটন স্পট গুলোতে অনেক স্থানেই নেই পর্যটকেরা মানছেনা ট্যুর অপারেটর গাইডের নির্দিষ্ট নিয়ম নিতি। অনেক ক্ষেত্রেই তাদের ব্যাবহৃত পানির বোতল ও পলেথিন সামগ্রী, ঝিরি ঝর্না ও পাহাড়ের পাদদেশে যত্রতত্র ফেলার কারনে পরিবেশের উপর পড়ছে এর বিরূপ প্রভাব।

এ বিষয়ে বান্দরবান স্কাই এন ভ্যালি (ট্যুর অপারেটর) এর সিইও মোঃ মামুনুর রশিদ বলেন আমরা সবসময়ই রিমোট এলাকায় অবস্থিত পর্যটন স্পট গুলোতে টুরিস্টদের ভ্রমণের ক্ষেত্রে ট্যুর অপারেটর গাইডদের কিছু নিয়মনিতি সম্পর্কে টুরিস্টদের বলে দেয়া থাকে,তার পরেও অনেক ক্ষেত্রেই টুরিস্টরা আমাদের গাইডের নির্দেশ পালন করতে চায় না। টুরিষ্টদের এ ধরনের আচরনের জন্য অনেক ক্ষেত্রেই তারা ভয়াবহ বিপদের সম্মুখীনও হয়েছেন অনেক বার।

জেলা টুরিস্ট পুলিশ এর ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আমিনুল হক বলেন বান্দরবান টুরিস্ট পুলিশ এর পক্ষ হতে আগত পর্যটকদের সবসময়ই এ ধরনের সচেতনতার বিষয়ে বলা হয়ে থাকে।

জেলায় অনেক পর্যটন স্পট আছে যে গুলো সংরক্ষিত এলাকায় এ সকল পর্যটন স্পট গুলোতে আমাদের টুরিস্ট পুলিশের কার্যক্রম কম থাকে,বিশেষ করে স্থানীয় ট্যুরিস্ট গাইডরা এ সকল জায়গায় পর্যটকদের দিকনির্দেষনা দিয়ে থাকে।

অনেক ক্ষেত্রেই পর্যটকদের গাফিলতির কারনে তারা নিজেদের ব্যাবহার্য প্লাস্টিক জাতীয় দ্রব্য যত্রতত্র ফেলে পরিবেশ দুষন করে।তাই পরিবেশ দুষন ঠেকাতে পর্যটকদেরই সচেতন হতে হবে বেশি।তারপরও যদি কোন ট্যুর অপারেটর পর্যটক গাইডিং পরিচালনায় অসুবিধার সম্মুখীন হয় আমাদেরকে লিখিত অভিযোগ করলে আমরা আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করবো।

বান্দরবান হোটেল মোটেল রিসোর্ট সমিতির সাধারন সম্পাদক মোঃ সিরাজুল ইসলাম বলেন বছরের এ সময়টাতে পর্যটকদের ভিড় বেশি থাকে। আমরা বিভিন্ন সময় অনেক সেমিনারের মাধ্যমে ট্যুর অপারেটর প্রতিষ্ঠান গুলোকে এ বিষয়ে দিকনির্দেশনা দিয়েছি।পরবর্তীতে আমরা সকল হোটেল মোটেল রিসোর্টে সচেতনতামূলক বিলবোর্ড প্রদর্শনের ব্যাবস্থা গ্রহন করবো।